হঠাৎ শা’রীরিক মি’লন বন্ধ করলে মে’য়েদের যা হয়, সকল ছেলেদের জানা উচিৎ

হঠাৎ শা’রীরিক মি’লন বন্ধ করলে মে’য়েদের যা হয়, সকল ছেলেদের জানা উচিৎ স্বা’মী-বিয়োগ, বিবাহ-বি’চ্ছেদ, বা অন্য শহরে চাকরি, এধরনের নানাবিধ কারণে মি`লন’তা হা’রিয়ে যেতে পারে না’রীর থেকে।

এতে অনেক সময় ক্ষ’তিগ্র’স্থ হয় না’রী শ’রীর। মা’নসিক দিক থেকে সু’খ ও শান্তি চলে যায়। অনেক দেখা দেয়। তবে কিছু ক্ষেত্রে ভালোও হয়। ভালো-ম’ন্দ মিলিয়ে স’হবা’স বন্ধ হওয়ার কারণে কী কী আসে জেনে নিন

আগের চেয়ে অনেক বেশি উ’তলা করে তোলে: আমরা সবাই জানি, মি’লন হ’তাশা, হাঁ’হুতাশ মেটাতে সাহায্য করে। কিন্তু কোনও অ’জ্ঞাত কারণে যদি না’রীর জীবনে স’হবা’সের চ্যা’প্টার বন্ধ হয়ে যায়, তবে মা’নসিক তৈরি হতে পারে। কথায় কথায় মন খা’রাপ, কিছু ভালো না লা’গা, কারণে অকারণে অ’তিরিক্ত রা’গ জ’ন্মাতে শুরু হতে পারে।

মানুষের স’ঙ্গে দু’র্ব্য’বহার করতেও শুরু করে দিতে পারেন সেই না’রী। স্ক’টিশ গবেষকদের পরীক্ষায় জানা যায়, স’হবাস বন্ধ হয়ে গেছে এমন ম’হিলাদের নাকি লোকের স’ঙ্গে কথা বলতেও অসুবিধে হয়।

এর কারণ, স’হবা’স করার সময় থেকে যে ফি’ল গু’ড কে’মিক্যাল এ’ন্ডোর্ফিন ও অ’ক্সিটোসিন নিঃ’সরিত হয়, তা বন্ধ হয়ে যাওয়া। ই’উরিনারি ট্র্যা’ক্ট ই’নফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়: স’ঙ্গ’মের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মূ’ত্র’নালীতে সং’ক্রমণ হতে পারে।

প্র’স্রাবের সময় জ্বা’লায’ন্ত্রণা শুরু হতে পারে তখন। কিন্তু স’হবাস করা বন্ধ হয়ে গেলে ই’উরিনারি ট্র্যা’ক্ট স’ম্ভাবনা অনেকটাই কমে যায়। স’র্দি কা’শি প্র’তিরোধ ক্ষ’মতা কমে যায়: মি’লন- করলে শ’রীরে রো’গ-জী’বাণুর প্র’বেশ ক’ষ্টকর হয়ে ওঠে। অর্থাৎ, শ’রীরে রো’গপ্র’তিরোধ শ’ক্তি গড়ে ওঠে।

পে’নসিলভেনিয়ার উ’ইলকিসবারে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মত, সপ্তাহে অন্তত দু’বার স’হবা’স করলে ইমিউনোগ্লোবিন অ ছোটো করে বললে, ওমঅ।’ এই হর’মোনের নিঃ’সরণ শ’রীরে রো’গ প্র’তিরোধ ক্ষ’মতা বা’ড়ায় হ’রমোনের পরিমাণ ৩০% বাড়িয়ে দিতে পারে। ফলে স’র্দি, কা’শি,

জ্ব’র হওয়ার প্র’বণতা কমে যায়। কিন্তু মি’লন করা হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেলে ক’মজো’রি হয়ে পড়ে না’রীশ’রীর। স’র্দি, কা’শির শুরু হয়। হৃ’দয় হা’র মানতে শুরু করে হ’রমোনের কাছে: দেশ-বিদেশের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা বলছে, স’হবা’স করলে ভালো থাকে। হ’র’মোনের নিঃ’সরণ যথাযথ পরিমাণে হতে থাকে।

কিন্তু অনেকদিন স’হবা’স বন্ধ থাকলে হৃ’দযন্ত্রে নে’তিবাচক সমস্যা তৈরি করতে পারে। শ’রীর ক’মজো’রি হয়ে পড়ে। নিয়মিত এ’ক্সারসাইজ় করলে বা ট্রে’ডমিলে দৌড়ালেও লাভ হয় না।

স’হবাস করার ইচ্ছে চলে যেতে পারে: যাঁরা মনে করেন, নিয়মিত স’হবাস করার অ’ভ্যাসে একবার দাঁ’ড়ি বসলে, কা’মনা-বা’সনার লা’গাম ছাড়িয়ে যায়। তা হলে তাঁরা ভু’ল জানেন। স’হবা’স করা হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেলে, মি’লিত হওয়ার বাসনা কমে যায়।

এটা ম’হিলাদের ক্ষেত্রে বেশি প্রযোজ্য। শ’রীরে উ’ত্তেজ’না লোপ পেতে শুরু করে। একটা সময় পর আর কামেচ্ছা জাগে না। বুদ্ধি কমে যায়: নিয়মিত স’হবা’স করা শুরু করলে,

সেটা যদি হঠাৎ ব’ন্ধ হয় যায়, তবে বু’দ্ধি লো’প পেতে পারে। সারাক্ষণের ক্লা’ন্তি, হ’তা’শা ম’স্তিষ্কে নেতিবাচক প্র’ভাব ফে’লতে পারে। যার ফলে সবচেয়ে বেশি প্র’ভাবিত হয় স্ম’রণশ’ক্তি। সবকিছু ভু’লে যাওয়ার সমস্যা তৈরি হতে থাকে। আর এর জন্য দায়ি একমাত্র স’হবা’স থেমে যাওয়া।

About admin

Check Also

যেভাবে ভেস্তে গেল বিএনপির উদ্যোগ!

২০ দলীয় জোট থেকে জামায়াতকে দূরে ঠেলতে বিএনপির একটি অংশ অনেকদূর অগ্রসর হলেই দলের অন্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *