গ্রাম্য সালিশে সকলের সামনে তিনজনকে ছু’রিকাঘাতে হ’ত্যা, না’রী সহ ছয়জন রি’মান্ডে

সালিশে ছু’রিকাঘাতে তিনজনকে হ’ত্যা মা’মলায় না’রীসহ গ্রে’ফতার ছয়জনকে রি’মান্ডে পাঠিয়েছে আ’দালত। তাদের মধ্যে না’রীকে তিনদিন ও বাকি পাঁচজনকে পাঁচদিন করে রি’মান্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

রোববার সকালে আমলি আ’দালত-১ এর বিচারক চিফ জু’ডিশিয়াল ম্যা’জিস্ট্রেট কাজী কামরুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

রি’মান্ডপ্রা’প্তরা হলেন- মো. জামাল হোসেন, তার স্ত্রী নাসরিন বেগম, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. রনি, মো. ইমরান হোসেন, রাহুল প্রধান।

এর আগে তিনজনকে হ’ত্যার অভিযোগে শুক্রবার ১২ জনের নাম উল্লেখসহ ২৭ জনকে আ’সামি করে মা’মলা করা হয়। পরে অ’ভিযান চা’লিয়ে ছয়জনকে গ্রে’ফতার করে পু’লিশ।

মা’মলার ত’দন্ত কর্মকর্তা ও মুন্সিগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (ত’দন্ত) রাজীব খান জানান, রি’মান্ডে আ’সামিদের জবানব’ন্দি নেয়া হবে। এতে মা’মলার দ্রু’ত অগ্রগতি হবে। বাকি আ’সামিদের গ্রে’ফতারে অ’ভিযান চলছে।

বুধবার (২৪ মার্চ) বিকেলে সদর উপজে’লার উত্তর ইসলামপুরে দুটি কিশোর গ্যাংয়ের মধ্যে কথা কা’টাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তা হাতাহাতিতে গড়ায়। সমস্যার সমাধান করতে ওই রাত সাড়ে ১০টার দিকে দুই পক্ষকে নিয়ে সালিশ বসানো হয়। সেখানে সৌরভ, অভি, সিহাব গ্রুপের ছু’রিকাঘাতে নি’হত হন অন্য গ্রুপের মো. ইমন হোসেন, মো. সাকিব হোসেন ও মিন্টু প্রধান।

৯৮ বছর সম্প’র্কী স্নেহময়ী মা, ৮০ বছর সম্প’র্কী ছেলের দেখাশোনা করতে ছেলের কি’শোরীে গেলেন

মা আর ছেলের বন্গবে’ষণাের মত সেরা বন্গবে’ষণা পৃথিবীতে আর কিছুই নাই। এই গল্পটা ঠিক সেটারই প্রমাণ! অ্যাডা কেটিং, ৯৮ বছর সম্প’র্কী এক মা, নিজের ৮০ বছর সম্প’র্কী ছেলেকে দেখাশোনা করতে লিভারপুলে ছেলের কি’শোরীে গেলেন এবং সবকিছুই যেন স্বাভাবিক হয়ে উঠলো!

অ্যাডা এবং তার অ’চেতন আ’কর্ষণীয় হ্যারির চারটি পু’লিশ – টম, বারবারা, মার্গি, জ্যানেট। টম একজন পেইণ্টার ছিলেন। ২০১৬ সালে যখন সে ওল্ড হোমে আসেন তখন তার অনেক সেবাযত্নের দরকার ছিলো।

ওল্ড হোমে মা ছেলে হয়ে উঠেন অবিচ্ছেদ্য। তারা একসাথে খেলাধুলা করেন এবং টিভি অনুষ্ঠান দেখেন। অ্যাডা বলেন, ‘আমি টমকে প্রতিদিন রাতে শুভ রাত্রি জানাই এবং প্রতিদিন সকালে শুভ সকাল বলি’।

অ্যাডা কর্মজীবনে একজন নার্স ছিলেন, তিনি বলেন,’ আমি যখন কোন কাজে বাইরে যাই সে আমার জন্যে অপেক্ষা করে এবং আমাকে ফিরে আসতে দেখলে কাছে এসে জড়িয়ে ধরে’।

টম এখন বেশ খুশি এবং সুস্থ, তিনি জানান, ‘এখানকার সবাই বেশ ভাল এবং আমি আমার মাকে এখানে পেয়ে বেশ খুশি। সে এখন আমার দেখাশোনা করে এবং আমার সাথেই থাকে। মাঝে মাঝেই সে আমাকে শাসন করে বলে নিজেকে সামলে নিতে!’

প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার বলেন,’ টম এবং তার মাকে পেয়ে আমরা বেশ খুশি। এটা খুবই বিরল একই ওল্ডহোমে মা আর ছেলের একসাথে থাকা। আমরা তাদের সকল রকম সুযোগ সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি!’ সবকিছুর শেষে অ্যাডার একটা কথাই বলবো, ”আপনি কখনো ‘মা’ হওয়া থামাতে পারবেন না”!

About tanvir

Check Also

ভো’ট চা’ইতে গিয়ে গ;ণ’ধ;র্ষ;ণে;র শি’কার ম’হিলা প্রা’র্থী

প’টুয়াখালীর মি’র্জাগঞ্জে সংরক্ষিত এক না’রী কা’উ’ন্সিলর প্রার্থীকে (৪৫) গ;ণধ;র্ষ;ণের অ;ভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *