Breaking News

মসজিদ কমিটিতে মা’দক ব্যবসায়ীর নাম, জুম্মার নামাজেই হট্টগোল

রাজধানীর পল্লবীর মিরপুর ১১ নং বড় মসজিদে (বায়তুল মোয়াজ্জেম) কমিটির তালিকায় এক মা’দক ব্যবসায়ীর নাম থাকায় জুম্মা নামাজের মধ্যেই হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে সাধারণ মুসল্লীদের মধ্যে ক্ষো’ভ সৃষ্টি হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) রাত ১১ টা পর্যন্ত এ নিয়ে মিরপুর ১১ নং বড় মসজিদের আশেপাশের এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল।

জানা যায়, শুক্রবার জুম্মা নামাজের খুতবা চলাকালীন সময় বায়তুল মোয়াজ্জেম জামে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আফাজ উদ্দিন সরদার নকশা অনুযায়ী মসজিদ নির্মাণের ঘোষণা দিলে মসজিদ কমিটির সভাপতি মোস্তাক আহমেদ তা প্রত্যাখ্যান করেন।

এ নিয়েই মসজিদের ভে’তর একটি উ’ত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এসময় মসজিদের মুসল্লীরা মোস্তাককে কমিটি থেকে বাদ দেওয়ার জন্য বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বড় মসজিদের কয়েকজন মুসল্লী বলেন, গত ২ বছর থেকে এই মসজিদের কোনো কমিটি ছিল না। গত বছরের জুন মাসে ঢাকা ১৬ আসনের সং’সদ সদস্য আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ এই মসজিদের একটি নতুন কমিটি ঘোষণা করেন।

আবার সেই কমিটি ভে’ঙে দিয়ে গত ৭ জানুয়ারি পূর্না’ঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিতে পল্লবীর কু’খ্যাত মা’দক ব্যবসায়ী জাহিদের নাম থাকায় গতকাল থেকেই মুসুল্লিদের মধ্যে উ’ত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। কমিটিতে মা’দক ব্যবসায়ী জাহিদকে সদস্য করায় আলোচনা-সমালোচনা চলছিল।

মুসল্লীরা জানান, এই মসজিদের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ নিজেও বি’তর্কি’ত মানুষ। বহুবার মসজিদের উন্নয়নের টাকা মে’রে দিয়েছেন। মসজিদের নামে থাকা একটি গোডাউন দ’খল করেছেন এবং আরেকটি গোডাউন দ’খলের চেষ্টা করছেন।

তার ৭ ছেলের মধ্যে একজন এলাকার নামকরা মা’দক ব্যবসায়ী আরেকজন হ’ত্যা মা’মলার আ’সামি। নিজের স’ন্ত্রাসী ছেলেদের জো’রেই মোস্তাক মসজিদ কমিটি দ’খল করেছে। মা’দক ব্যবসায়ী জাহিদের নামও মোস্তাকের সম্মতিতে কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

এখন সাধারণ সম্পাদক আফাজ সরদারের উপর দোষ চা’পিয়ে তাকে সরানোর চেষ্টা করছে মোস্তাক আহমেদ। নতুন মসজিদ কমিটি একটি হাজিরা খাতায় বানানো হয়। সে খাতায় মোস্তাক ও আফাজ দুইজনই সাক্ষর করেছেন।

কিন্তু এখন মসজিদ কমিটির সভাপতি মোস্তাক কিছু জানেন না এমন দাবি করছেন। এটা অযৌক্তিক।

ঘ’টনার সত্যতা নিশ্চিত করে পল্লবী থানার ভারপ্রা’প্ত কর্মকর্তা কাজী ওয়াজেদ আলি বলেন, ‘নামাজের সময় বায়তুল মোয়াজ্জেম জামে মসজিদের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক আফাজ উদ্দিন সরদারের সমর্থকদের মধ্যে উ’ত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

ঘ’টনাটি বড় ধরনের সং’ঘর্ষের দিকে যাচ্ছিল। কিন্তু সঠিক সময়ে পু’লিশ পরিস্থিতি নি’য়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

এ ঘ’টনার মিমাংসা এখনো হয়নি। মসজিদের ভে’তর এরকম হওয়াটা খুবই দুঃখজনক ব্যাপার। মসজিদের কমিটিকে কেন্দ্র করে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হয় তাহলে উভ’য় পক্ষের বি’রুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বি’ষয়ে বায়তুল মোয়াজ্জাম জামে মসজিদের সাধারণ সম্পাদক আফাজ উদ্দিন সরদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ততার কথা জানিয়ে ফোন রেখে দেন।

About admin

Check Also

যুক্তরাষ্ট্রে ৬০ লাখ ডলার রেখে গেছেন ‘পাঠাও’র ফাহিম সালেহ

বাংলাদেশের রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাওয়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ যুক্তরাষ্ট্রে ৬০ লাখ ডলার রেখে গেছেন। নিউইয়র্কের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *