মওদুদের ম’রদে’হ নিতে এসে কা’ন্নায় ভে’ঙে পড়লেন ফখরুল

দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহম’দের ম’রদে’হ গ্রহণ করতে এসে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বিএনপির মহাস’চিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) সন্ধ্যায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ৮ নম্বর গেটে সাংবাদিকদের স’ঙ্গে আলাপকালে এ দৃশ্যের অবতারণা হয়।

এ সময় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, মওদুদ আহম’দের নামে ৩২টি হ’য়রানিমূ’লক মা’মলা দেয়া হয়েছে। তিনি দক্ষ একজন রাজনীতিক ছিলেন।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের চলে যাওয়া দেশ ও জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষ’তি। তার চলে যাওয়া শুধু বিএনপি নয় সমগ্র জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষ’তি। মওদুদ আহম’দের মৃ’ত্যুতে যে শূন্যতা তৈরি হলো, তা গণতান্ত্রিক আন্দোলন জোরদার করে পূরণের চেষ্টা করা হবে।

এসময় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বরকত উল্লাহ বুলু, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নুল আবদীন ফারুক, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবদুল লতিফ জনি, বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ, প্রকৌশলী মো. ইশরাক হোসেন, তাবিথ আউয়াল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর কিছুক্ষণ পরই সন্ধ্যা ৬ টা ৩ মিনিটে মওদুদ আহম’দের ম’রদে’হবাহী ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান জাগো নিউজকে এ ত’থ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বিমানবন্দর থেকে মওদুদ আহম’দের ম’রদে’হ তার গুলশানের বাসায় নেয়া হবে। এরপর ম’রদে’হ এভার কেয়ার হসপিটাল হিমঘরে রাখা হবে।

উইঘুর মু’সলিম না’রীদের জরায়ুতে বিশেষ ডিভাইস বসিয়েছে চীন

চীনে মু’সলিম জনসংখ্যা যাতে বাড়তে না পারে, সেজন্য উইগুর মু’সলিম না’রীদের জো’র করে বন্ধ্যা করে দিচ্ছে দেশটির স’রকার। নতুন এক গবে’ষণায় ভ’য়াবহ এ ত’থ্য উঠে এসেছে।

চীনা গবেষক আদ্রিয়ান জেনজের লেখা রিপোর্টটি প্রকাশিত হওয়ার পর এই ঘ’টনার ত’দন্ত করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক নানা মহল। তবে চীন এই রিপোর্টের দাবিগুলোকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে প্রত্যাখ্যান করেছে।

অনেক আগে থেকেই অভিযোগ আছে, উইগুর মু’সলিম’দের ধরে নিয়ে গিয়ে ডিটেনশন ক্যাম্পে রাখছে চীন। এ নিয়ে বেশকিছুদিন ধরেই সমালোচনা চলছে।

ধারণা করা হয় চীনে প্রায় ১০ লাখ উইগুর ও অন্যান্য জাতির মু’সলিম’দের ক্যাম্পে ব’ন্দি করে রাখা হয়েছে। ওই ক্যাম্পের ছবি প্রকাশ হওয়ার পর অবশ্য চীন বলেছে, ‘নতুন করে শিক্ষা’ দেওয়ার জন্য তাদের ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। কিন্তু গবেষকরা বলছেন, নতুন করে শিক্ষা মানে তাদের মন থেকে মু’সলিম সংস্কৃতি এবং ধর্মীয় অনভূতির বি’ষয়গুলো ন’ষ্ট করে দেওয়া।

২০১৯ সালে বিবিসির করা এক ত’দন্তে উঠে আসে, জিনজিয়াংয়ের মু’সলিম শি’শুদের তাদের পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করা হচ্ছে যেন তারা মু’সলিম সম্প্রদায় থেকে আলাদা হয়ে বড় হয়।

চীনা গবেষক আদ্রিয়ান জেনজের রিপোর্টে অভিযোগ তোলা হয়, স’রকারি নির্ধারিত সংখ্যার চেয়ে বেশি সংখ্যায় স’ন্তান জ’ন্ম দেওয়ায় উইগুর ও অন্যান্য সংখ্যালঘু না’রীদের ক্যাম্পে ব’ন্দী করে রাখার হু’মকি দেওয়া হচ্ছে।

রিপোর্টে আরও দাবি করা হচ্ছে, যে যেসব না’রী দুটির চেয়ে কম স’ন্তান জ’ন্ম দিতে আইনিভাবে বৈধ, তাদের জরায়ুতে আইইউডি (ইন্ট্রা-ইউটেরিন ডিভাইস – যেটি সাধারণত ৫ থেকে ১০ বছরের জন্য না’রীদের গ’র্ভধারণ করা থেকে বিরত রাখে) প্রবেশ করানো হচ্ছে এবং অন্যদের বন্ধ্যা করানোর উদ্দেশ্যে জো’র করে সার্জারি করানো হচ্ছে।

জেনজের বিশ্লেষণ অনুযায়ী জিনজিয়াংয়ের জনসংখ্যার স্বাভাবিক প্রবৃ’দ্ধির হারে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বড় ধরণের পরিবর্তন এসেছে। তিনি সংবাদ সংস্থা এপিকে বলেছেন, এটি উইগুরদের বশে আনার জন্য বিস্তৃত একটি পরিকল্পনার অংশ। ব’ন্দি শিবিরেও না’রীদের মাসিক বন্ধ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ও’ষুধ খাওয়ানো হয় বলে অভিযোগ আছে দীর্ঘদিন ধরেই।

রিপোর্টে বলা হয়, সামগ্রিকভাবে দেখলে মনে হয়, তিন বা তার চেয়ে বেশি সংখ্যক স’ন্তান আছে যেসব না’রীর, তাদের ঢালাওভাবে বন্ধ্যা করার লক্ষ্যে পদক্ষেপ নিচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

About tanvir

Check Also

ভো’ট চা’ইতে গিয়ে গ;ণ’ধ;র্ষ;ণে;র শি’কার ম’হিলা প্রা’র্থী

প’টুয়াখালীর মি’র্জাগঞ্জে সংরক্ষিত এক না’রী কা’উ’ন্সিলর প্রার্থীকে (৪৫) গ;ণধ;র্ষ;ণের অ;ভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *