ছে’লের হাত থেকে বাঁচতে পা’লিয়ে বেড়াচ্ছেন ‘মা’

মুক্তিযোদ্ধা খান শাহাদাত হোসেন ও নুরুন্নাহার রুনু দম্পতি স’ন্তানের চোখে-মুখে নিজের ভবি’ষ্যত দেখতেন। শাহাদাত হোসেন মা’রা যাওয়ার পর স’ন্তানকে একা লালনপালন করে নুরুন্নাহার। আর সেই স’ন্তানের ভ’য়ে এখন পা’লিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি।

বুধবার (৬ মে) দিবাগত রাত ১টায় রাজধানীর গ্রিনরোড এলাকার গেজেটেড ডর্মেটরির দ্বিতীয় তলার বাসা থেকে মাকে মা’রপিট করে ঘর থেকে তাড়িয়ে দিয়েছেন বখে যাওয়া ছে’লে খান মিল্লাত।

নুরুন্নাহার রুনু বলেন, বিপথগামী এই স’ন্তান কয়েক বছর ধরেই তাকে মা’নসিকভাবে নি’র্যাতন করে আসছেন। প্রায় রাতে বন্ধুদের নিয়ে বাসায় মা’দকের আসর বসান। মা’দকের টাকা যোগাতে বাসার মূ’ল্যবান জিনিসপত্র বিক্রি করে উজাড় করে দিয়েছেন। ফ্রিজ-ফ্যান বিক্রি করে দিয়েছেন। বিভিন্ন ধরনের মে’য়েকে নিয়ে এসে নুরুন্নাহার রুনুকে ঘরে তালা দিয়ে আ’ট’কে রাখেন। এই নিয়ে প্র’তিবাদ করায় তাকে শা’রীরিক নি’র্যাতন শুরু করেন।

এসব ব্যাপারে পু’লিশের কাছে অ’ভিযোগ করায় বে’পরোয়া ছে’লে আরও ক্ষেপে যান। এক সপ্তাহ যাবত প্রায় প্রত্যেক রাতেই নিজের মাকে মা’রপিট করছেন তিনি। ৩ মে রাতে লা’ঠি দিয়ে পিটান গ’র্ভধারিনী মাকে।

বুধবারের ঘ’টনা স’ম্পর্কে নুরুন্নাহার রুনু জানান, তিনি শুয়ে পড়েছিলেন। রাত ১১ টায় একজন বন্ধুসহ বাসায় ফেরেন তার ছে’লে খান মিল্লাত। ফিরেই মাকে বলেন, পি’স্তল নিয়ে একজনকে তুলে আনতে গিয়েছিলেন। সেই লোকের স’ঙ্গে ধ’স্তাধ’স্তি হয়, এক পর্যায়ে গু’লি করতে গেলে পি’স্তল থেকে গু’লি বের হয়নি।

পরে সেই লোক তার পি’স্তল কেড়ে নিয়েছে। এখন পি’স্তলের মালিককে পঞ্চাশ হাজার টাকা দিতে হবে। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে বিছানায় শুয়ে থাকা অবস্থায় মায়ের মুখে চর-থা’প্পড় মা’রেন খান মিল্লাত। এরপর মা’থা ও শ’রীরেও মা’রধর করেন। বিছানা থেকে ওঠার চেষ্টা করলে বিছানায় ঠেস দিয়ে ধরে রাখেন।

এভাবে প্রায় দেড় ঘণ্টা তাকে আ’ট’কে রেখে নি’র্যাতন করা হয় রুনুকে। রাত সাড়ে ১২টার দিকে ছু’রি আনতে বলেন তার বন্ধুকে। এ সময় পাশের রুমে গেলে রুনু দৌড়ে নিচে নেমে আসেন। ছে’লেও পিছু নিলে পাশের ফ্ল্যাটের বাসিন্দারা অ’সহায় মাকে রক্ষা করেন। রাতেই ৯৯৯ নম্বরে কল দিয়ে পু’লিশ ডেকেছিলেন প্রতিবেশীরা। পু’লিশ এলে পা’লিয়ে যায় খান মিল্লাত।

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার (৭ মে) কলাবাগান থা’নায় নুরুন্নাহার রুনু নিজের ছে’লের বি’রুদ্ধে মা’মলা দা’য়ের করেছেন বলে জানা গেছে।

নুরুন্নাহার রুনু জানান, মা’দকাসক্ত এই স’ন্তানের জন্য আত্মীয় স্বজন সবার স’ঙ্গে তার স’ম্পর্ক ছিন্ন হয়েছে। নিজের বাসা নেই, কারো বাসায় ঠাঁই হয় না। দিনের আলো দেখতে পাবেন এমন আশা ছেড়েই দিয়েছিলেন। ভ’য়াল ওই রাতের কথা মনে উঠলেই ভ’য়ে আঁতকে ওঠেন তিনি। নিজের ছে’লে এভাবে নি’র্যাতন করতে পারে কল্পনাও করতে পারেন না তিনি। জীবন বাঁ’চাতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন।

মে’য়ে জামাই ব্যাংকার আব্দুর রহিম মিয়াও অ’ভিন্ন অ’ভিযোগ করেন। তিনি বলেন- “মা’দকের টাকা না দিলে আমা’র শাশুড়িকে প্রায় মা’রপিট করেন আমা’র শ্যালক খান মিল্লাত। আম’রা তার বিচার চাই।”

About tanvir

Check Also

ভো’ট চা’ইতে গিয়ে গ;ণ’ধ;র্ষ;ণে;র শি’কার ম’হিলা প্রা’র্থী

প’টুয়াখালীর মি’র্জাগঞ্জে সংরক্ষিত এক না’রী কা’উ’ন্সিলর প্রার্থীকে (৪৫) গ;ণধ;র্ষ;ণের অ;ভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *